চট্টগ্রাম মা ও শিশু হাসপাতালকে করোনা বিশেষায়িত হাসপাতাল হিসেবে ঘোষণা করার দাবী জানিয়েছেন-খোরশেদ আলম সুজন

রাকিব হাসান অনিক,চট্টগ্রামঃ অবিলম্বে চট্টগ্রাম মা ও শিশু হাসপাতালকে করোনা বিশেষায়িত হাসপাতাল হিসেবে ঘোষণা করার দাবী জানিয়েছেন জনদুর্ভোগ লাঘবে জনতার ঐক্য চাই শীর্ষক নাগরিক উদ্যোগের প্রধান উপদেষ্টা ও চট্টগ্রাম মহানগর আওয়ামী লীগের সহ-সভাপতি খোরশেদ আলম সুজন। তিনি আজ রবিবার (৩১ মে ২০২০ইং) সকাল ১১ ঘটিকায় মা ও শিশু হাসপাতালের সামনে নাগরিক উদ্যোগ আয়োজিত এক মানববন্ধনে প্রধান অতিথির বক্তব্যে উপরোক্ত বক্তব্য রাখেন।

এ সময় সুজন বলেন- বর্তমান সরকারের প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশের মানুষকে করোনাভাইরাসের প্রাদুর্ভাব থেকে মুক্ত করতে প্রতিদিনই নানারকম দিকনির্দেশনা প্রদান করছেন। দেশের রাজধানী ঢাকার পরেই চট্টগ্রামের স্থান। চট্টগ্রামের গুরুত্ব বিবেচনা করে চট্টগ্রামের মানুষকেও এ ভাইরাসের কবল থেকে রক্ষা করতে প্রধানমন্ত্রী তার কার্যকরী পরিকল্পনা চালিয়ে যাচ্ছেন। প্রধানমন্ত্রীর এতোসব উদ্যোগের পরেও চট্টগ্রামে করোনা চিকিৎসায় নানারকম অসঙ্গতি, অব্যবস্থাপনা লেগেই রয়েছে। সর্বত্র চিকিৎসাসেবা নিয়ে মারাত্নক হাহাকার। আজ এটা আছে তো কাল সেটা নেই, আবার কাল সেটা আছে তো পরশু ওটা নেই। যেন লেজেগোবরে অবস্থা। সরকার কিংবা স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের কোন সিদ্ধান্তই এখানে সঠিকভাবে বাস্তবায়িত হচ্ছে না। ফলতঃ চট্টগ্রামের মানুষ এক প্রকার বিশ্বাস অবিশ্বাসের দোলাচলে দিনানিপাত করছে। কোথায় গেলে কাঙ্খিত চিকিৎসাসেবা পাওয়া যাবে তার কোনো সদুত্তর নেই। মানুষের জীবন মৃত্যুর এ সন্ধিক্ষণে বেসরকারি হাসপাতালগুলো প্রতিদিনই তাদের নিত্যনতুন গল্প জনগনের সামনে উপস্থাপন করছে। তারা প্রতিদিন করোনা চিকিৎসায় তাদের নানারকম প্রস্তুতির কথা শুনিয়েই সময় পার করছে অথচ চিকিৎসাসেবার জন্য তাদের দুয়ারে গেলে তাদের সে দুয়ার আর খোলে না। এমন যখন দুরবস্থা চারিদিকে তখন চট্টগ্রামের কিছু হাসপাতাল করোনা রোগীদের চিকিৎসায় এগিয়ে আসলেও তাদেরকে সেভাবে প্রস্তুত করা হচ্ছে না। অন্যদিকে প্রতিদিনই জনগনের অমূল্য প্রাণ বিনা চিকিৎসায় নিভে যাচ্ছে। অথচ আমরা যদি একটু মানবিক হয়ে এগিয়ে আসতাম তাহলে হয়তো অমূল্য জীবনগুলো বাঁচাতে পারতাম। চট্টগ্রামের বাণিজ্যিক প্রাণকেন্দ্র আগ্রাবাদের জাম্বুরী মাঠের পাশেই বিশাল আকারের স্থাপনা নিয়ে মাথা উঁচু করে দাড়িয়ে রয়েছে চট্টগ্রাম মা ও শিশু হাসপাতালের নতুন ভবনটি। এ হাসপাতালটি যে কোন সময় ৪০০ মানুষের চিকিৎসা সেবার জন্য সম্পূর্ণ প্রস্তুত রয়েছে। রয়েছে পর্যাপ্ত আইসিইউ সুবিধা। এখন শুধু প্রয়োজন হাসপাতালটিকে করোনা বিশেষায়িত হাসপাতাল হিসেবে ঘোষণা প্রদান করার। বর্তমান সরকার ক্ষমতায় আসার পর থেকেই মা ও শিশু হাসপাতালকে ঘিরে ব্যাপক উন্নয়ন কর্মকান্ড পরিচালনা করেছে জনগনের স্বাস্থ্যসেবার কথা মাথায় রেখে। প্রধানমন্ত্রীর শুভ উদ্যোগটি পুরোপুরি পরিপূর্ণতা লাভ করবে যদি হাসপাতালটিকে সম্পূর্ণ করোনা বিশেষায়িত হাসপাতাল হিসেবে গড়ে তোলা যায়। আমরাও চাই হাসপাতালটি চট্টগ্রামের করোনা চিকিৎসায় মাইলফলক হিসেবে কাজ করুক। অথচ কেন জানিনা এ হাসপাতালটিকে করোনা চিকিৎসায় বিশেষায়িত হাসপাতালের ঘোষণা না দিয়ে অযথা সময়ক্ষেপণ করা হচ্ছে। মা ও শিশু হাসপাতাল কর্তৃপক্ষও চায় স্বাস্থ্যসেবার চরম এ দুঃসময়ে তারা জনগনের পাশে গিয়ে দাড়াবে কিন্তু তাদেরকেও সে সুযোগটা পর্যন্ত দেওয়া হচ্ছে না। অথচ যারা হাসপাতাল সুবিধা দেওয়ার কথা বলে বারবার জনগনকে প্রতারিত করছে তাদের পিছনেই আমাদের সকল সময় এবং প্রস্তুতি বিনষ্ট করা হচ্ছে, কিন্তু কেন? আমরা স্পষ্টতই দেখতে পাচ্ছি যে জনগনকে পরিকল্পিতভাবে চিকিৎসাসেবা বঞ্চিত করে সরকারের বিরুদ্ধে জনগনকে ক্ষেপিয়ে তোলার জন্য একটি মহল বিশেষভাবে চক্রান্তে লিপ্ত রয়েছে। মা ও শিশু হাসপাতালকে করোনা বিশেষায়িত হাসপাতাল ঘোষণা না দেওয়াটা তাদের সে চক্রান্তেরই অংশ।

জনাব সুজন অভিযোগ করে বলেন যাদের অদৃশ্য আঙ্গুল হেলনীতে সরকারের শুভ উদ্যোগসমূহ বাঁধাপ্রাপ্ত হচ্ছে তারা সকলেই হত্যাকারী। এদের বিরুদ্ধে চট্টগ্রামের জনগন মামলাসহ প্রয়োজনীয় সকল ব্যবস্থা গ্রহণ করতে প্রস্তুত রয়েছে। তিনি বলেন সরকার জীবন ও জীবিকার তাগিদে ধীরে ধীরে সবকিছু চালু করতে যাচ্ছে। সেই সাথে মানুষের জীবন বাঁচানোর তাগিদে চিকিৎসাসেবাও সম্প্রসারন করতে হবে। চট্টগ্রাম দেশের অর্থনৈতিক হৃদপিন্ড, বাণিজ্যিক রাজধানী। চট্টগ্রামের মানুষকে মৃত্যুর মিছিলের দিকে ঠেলে দিয়ে কোন উন্নয়নই পরিপূর্ণ রূপ লাভ করবে না বলেও মন্তব্য করেন সুজন। তিনি অবিলম্বে চট্টগ্রাম মা ও শিশু হাসপাতালকে করোনা বিশেষায়িত হাসপাতালের ঘোষণা দেওয়ার আহবান জানান নচেৎ চট্টগ্রামের জনগনকে সাথে নিয়ে চট্টগ্রামের জনগনের স্বাস্থ্য সেবা নিশ্চিতে অনশনসহ প্রয়োজনীয় সকল কর্মসূচী ঘোষণা করা হবে বলেও মানববন্ধনে ঘোষণা করেন তিনি।

নাগরিক উদ্যোগের সদস্য সচিব হাজী মোঃ হোসন এর সভাপতিত্বে অন্যান্যদের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন আব্দুর রহমান মিয়া, মোরশেদ আলম, চট্টগ্রাম মা ও শিশু হাসপাতালের আজীবন সদস্য ফোরামের সদস্য সচিব লায়ন মাহমুদুর রহমান শাওন, আজীবন সদস্য জাহিদ তানছির, এম. এ জলিল, মোঃ শাহজাহান, মোঃ জাহাঙ্গীর আলম, মোঃ ওয়াসিম, চট্টগ্রাম মহানগর ছাত্রলীগের যুগ্ম-সাধারন সম্পাদক রনি মির্জা, ইব্রাহিম বাপ্পি, সাজ্জাদ হাসান মনু, মহানগর ছাত্রলীগের সহ-সম্পাদক কালাচাদঁ ভট্টাচার্য সীমান্ত, হাসান মুরাদ, ফরহাদ সায়েম, মোহাম্মদ কাইয়ুম, শহিদুল ইসলাম শহিদ, মো.আবিদ, সাজ্জাদ হোসেন সাজ্জাদ, নাজমুল আলম শুভ, শুভ চক্রবর্ত্তী, আজম আলী জুয়েল, শাহাদাত আলম সাগর, আসিফ খান, অনিক চক্রবর্তী, প্রান্ত দে (পার্থ), পিয়াল দে, মেহেরাজ খান অপি, সাদমান জাওয়াদ, রেদোয়ান খান সাফিন, আরফিন চৌধুরি রবিন, জিহান আলী খান, সাদ্দাম হোসেন ইভান প্রমূখ।

Published by Rakib Hasan

এটি একটি অনলাইন ভিত্তিক বাংলাদেশের নিউজ র্পোটাল।

Leave a Reply

Fill in your details below or click an icon to log in:

WordPress.com Logo

You are commenting using your WordPress.com account. Log Out /  Change )

Google photo

You are commenting using your Google account. Log Out /  Change )

Twitter picture

You are commenting using your Twitter account. Log Out /  Change )

Facebook photo

You are commenting using your Facebook account. Log Out /  Change )

Connecting to %s

Create your website at WordPress.com
Get started
%d bloggers like this: